Movies

Killing Eve (2018+) Review | Movies Reviews

Eve’s life as a detective is not exactly what she expected when she started. He was a boring, talented, MI5 security officer, and was very desk-bound. Villanley is a brilliant killer, Mercury in the mood, he clings to the luxury of his work. Eva and Villanelle go to the extreme game of cat and mouse, each woman equally frantic with the others, while Eva is burdened to hunt a mind-killer. The BBCA chief Sarah Barnett said, “Eve’s murder is a sea of ​​scripted stories refreshing entertainment and fun.”

Killing Eve (2018+)
ক্যাচ মি ইফ ইউ ক্যান ঘরানায় স্পাই থ্রিলার, সিরিয়াল কিলিং, ক্রাইম, অ্যাডভেঞ্চারের সাথে ব্ল্যাক কমেডির দারুণ এক প্যাকেজ! একটা মাথানষ্ট হিটম্যান/ অ্যাসাসিনের আর্ক দেখতে হলে দেখা শুরু করে দিন। একঘেয়ে লাগবে না। এমনভাবে সনাতন চোর-পুলিশ লড়াইকে হিউমার আর অ্যাডভেঞ্চারের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়েছে – দুর্দান্ত। প্রচুর অ্যাকশন, থ্রিল ও যৌন তাড়না, তারপরেও কোথাও বিন্দুমাত্র রক্তারক্তি বা যৌনতা-নগ্নতা দিয়ে বিনোদনের চেষ্টা নেই। হয়ত কান্ডারি নারীদের হাতে ছিল বলেই! তাই বলে Banshee এর ভক্ত হিসেবে কিছুটা যে চাইনি, তা নয়। ব্যানশির সেই সিরিয়াস আবার ব্লাডি সেক্সি ফানের পরিবর্তে এখানে ব্ল্যাক কমেডি (quirk) টা বেশি।
মূল গল্প👉 এক নারী অ্যাসাসিন আর এক নারী ডিটেক্টিভের চোর-পুলিশ খেলা।
📕২০১৮ এ বেস্ট সেলিং ভিলেনাল উপন্যাস অবলম্বনে ১ম ২ সিজনের চিত্রনাট্য লিখেছেন যথাক্রমে ফ্লিব্যাগ খ্যাত ফিবি ওয়ালার ব্রিজ ও প্রমিসিং ইয়াং ওম্যান খ্যাত এমেরেল্ড ফেনেল। আর বাকি দুই সিজনে আছেন ফিয়ার দ্যা ওয়াকিং ডেড ও সেক্স এডুকেশানের লেখিকা। ব্রিটিশ সিরিজটি শুরু থেকেই সাড়া ফেলে এসেছে নারীকেন্দ্রিক কাহিনী ও নারী সাইকোপ্যাথের ইতিহাসে দুর্দান্ত চরিত্রায়নের কারণে।
অনেকদিন কোন শো বা মুভি দেখে উপন্যাসটা পড়ার ছোটখাটো আগ্রহ জাগেনি, এবার Villenalle novelas এ কিছুটা হলেও কৌতূহল তৈরি হওয়ার পেছনে দায়ী – ভিলেনাল চরিত্রটা। সিজন ১ শেষে অভিনেত্রী জোডি কমারের কিছু সাক্ষাৎকার দেখে তাজ্জব বনে গেলাম, মেয়েটা ব্রিটিশ, অথচ কি সাবলীলভাবে বিভিন্ন ইউরোপীয় ভাষা বলে গেল। এমন পাগলী হিটম্যান আগে দেখেছি বলে মনে পড়ে না। ডেঞ্জারাস হলেও কোথাও না কোথাও মানবিকতা লুকিয়ে আছে, অন্যান্য ভিলেনের মত তারও দুর্বলতা আছে, জীবনে চাওয়াপাওয়া আছে (fetish আছে)।
গত এমিতে অবশেষে চরিত্রটির জন্য সেরা ড্রামায় পুরষ্কার জিতেছেন জোডি, (প্রথমবার হেরেছিলেন ইউফোরিয়ার জেন্ডেয়ার কাছে)।
💄প্রথম পর্ব (যেটার কারণে ফিবি সেরা লেখনীতে মনোনীত হয়েছিলেন) থেকেই দারুণভাবে হুকড, তারপরও সেভাবে বিঞ্জ করা হয়নি পেসিং এর দোষ না থাকা সত্ত্বেও। হয়ত গল্পে কিছু কিছু ব্যাপার আমার মত হার্ডকোর রিয়েলিস্টিক ড্রামা দেখা পাবলিকের একটু অবাস্তব লেগেছে, তারপরেও বিন্দুমাত্র হতাশ না হওয়ার কারণ – ফিবির অসাধারণ ব্যালেন্সড স্ক্রিনপ্লে। আমি জানি না, লুক জেনিংস এর উপন্যাস কেমন ছিল, তবে শুনেছি গল্পের দিক অনেকখানি পাল্টেছে সিজন ২ এর পরে, এই থ্রিলার ঘরানাটা এত দেখেছি, যে কাহিনী যেভাবে আগাচ্ছিল, গল্পের কিছু টুইস্ট আগে থেকে অনুমান করতে পেরেছিলাম বটে। তারপরেও সেখানে যাওয়াটা এত উপভোগ্য আর ভিলেনাল এত মোহময়ী যে যতক্ষণ স্ক্রিনে থাকুক, মনোযোগ এদিক ওদিক যাওয়াটা অসম্ভব। একজন সাইকোপ্যাথের প্রতি এতটা আসক্ত হওয়া ঠিক না যদিও। কি করা যাবে?
আবহ সঙ্গীতের ব্যবহারও অনন্য। সাউন্ডট্র্যাক/OST টা এখনো ইউটিউবে সার্চ করা হয়নি, আশা করি পাওয়া যাবে।
🦩খাস ক্রাইম-থ্রিলার-অ্যাডভেঞ্চার-অ্যাকশন ভক্তরা এখানে ভুড়ি ভুড়ি খুন খারাপি পাবেন, কারণ প্রায় কোন চরিত্রেরই প্রানের নিশ্চয়তা নেই। তবে অন স্ক্রিন ভায়োলেন্স আর যৌনতা সেভাবে পাবেন না, অ্যাকশন শুনে ডেয়ার ডেভিল, গ্যাংস অফ লন্ডন ভেবে বসবেন না। পরের দুই সিজনে কতটুকু এর ব্যাতিক্রম ঘটেছে জানিনা, তবে এখন পর্যন্ত পাল্লা ক্রাইম- থ্রিলার-কমেডির দিকেই ভারী।
সেক্সি কিন্তু সেক্স নেই, এটাই হয়ত new-age সিনেমা/সিরিজের মন্ত্র।
👉আমার গ্রেডিংঃ A (সিজন ১)
#সিরিজ #রিভিউ #টিভিসিরিয়াল #অভীজিবরান

সোর্স: দারুণ সব সিনেমার খবর আর লিংক

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
DMCA.com Protection Status